ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৮ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ৪ ১৪৩১

দ্রুত এগিয়ে চলছে বঙ্গবন্ধু রেলসেতুর কাজ

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৫০, ২০ জানুয়ারি ২০২৪  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলসেতুর কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। ৫০টি পিলারের মধ্যে ইতিমধ্যে ৪৩টি পিলার স্থাপনের কাজ শেষ হয়েছে। বাকি সাতটি পিলার নির্মাণের কাজ চলছে। এসব পিলারের ওপর ৩১টি স্প্যান বসানো হয়েছে। এতে সেতুর ৩ দশমিক ৫ কিলোমিটার এখন দৃশ্যমান। 

২০২৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রকল্পের কাজ ৭৬ শতাংশ শেষ হয়েছে। ডুয়েল গেজ ডাবল ট্র্যাকের এই সেতুর নির্মাণকাজ শেষ হলে ১২০ কিলোমিটার গতিতে প্রতিদিন অন্তত ৮৮টি ট্রেন চলাচল করতে পারবে এই রেলসেতু দিয়ে। চুক্তি অনুযায়ী চলতি বছরের আগস্ট মাসে সেতুর নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতুর প্রকল্প পরিচালক আল ফাত্তাহ মাসুদুর রহমান বলেন, ২০২৩ সালের ডিসেম্বর মাসে প্রকল্পের কাজ সব মিলিয়ে ৭৬ শতাংশ শেষ হয়েছে। নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে এই রেলসেতুতে। তৈরি হওয়া পিলারগুলোর ওপর স্প্যান বসানোর কাজ করছেন দেশি-বিদেশি প্রকৌশলীরা। ভিয়েতনাম থেকে আমদানি করা বিশেষ ধরনের বড় বড় স্টিলের পাটাতন দিয়ে তৈরি করা হচ্ছে স্প্যানগুলো। এটি তৈরি করা হচ্ছে ওয়েদার স্টিল দিয়ে, যা দেশের রেলসেতুতে এই ধরনের স্টিল ব্যবহার এই প্রথম। 

 ২০২৪ সালের আগস্ট পর্যন্ত এই প্রকল্পের মেয়াদ রয়েছে। নির্ধারিত সময়েই সেতুটির নির্মাণকাজ শেষ হবে বলে আশা করছেন তিনি। 

তিনি আরও বলেন, ওয়েদার স্টিল দিয়ে সেতুটি নির্মাণ করার কারণে ১০০ বছরেও সেতুর কাঠামোতে মরিচা ধরবে না। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে গাডারের উজ্জ্বলতাও বাড়বে। এ ছাড়া এই সেতুতে স্লিপার ছাড়াও বিশেষ পদ্ধতিতে বসানো হবে রেল ট্র্যাক। এতে ঘণ্টায় ১০০-১২০ কিলোমিটার বেগে চলবে পণ্যবাহী ও যাত্রীবাহী ট্রেন। এতে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের রেল যোগাযোগের গতি আরও বাড়বে। 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতু প্রকল্পের প্রধান প্রকৌশলী তানভীরুল ইসলাম বলেন, দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলসেতুর কাজ। ইতিমধ্যে রেলসেতুর ৪৩টি পিলার স্থাপন কাজ শেষ হয়েছে। বাকি সাতটি পিলার নির্মাণের কাজ চলছে। ৩১টি স্প্যান বসানোর পর সেতুর ৩ দশমিক ৫ কিলোমিটার এখন দৃশ্যমান। প্রকল্পের ডব্লিউ ডি-১ প্যাকেজের ৮৯ দশমিক ৪৬ শতাংশ, ডব্লিউ ডি-২ প্যাকেজের কাজ ৭০ দশমিক ২৮ শতাংশ ও ডব্লিউ ডি-৩ প্যাকেজের কাজ ৩৬ দশমিক ৩৪ শতাংশ শেষ হয়েছে। 

বাংলাদেশ ও জাপানের যৌথ অর্থায়নে ১৬ হাজার ৭৮০ কোটি টাকায় রেলসেতু প্রকল্পটির বাস্তবায়ন করছে জাইকা। ২০২০ সালের ২৯ নভেম্বর সেতুটির নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

উল্লেখ্য, ১৯৯৮ সালে বঙ্গবন্ধু সেতু চালু হওয়ার পরই ঢাকার সঙ্গে দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের রেল যোগাযোগ স্থাপন হয়। তবে ২০০৬ সালে বঙ্গবন্ধু সেতুর উত্তর লেনে প্রথম ফাটল দেখা দেয়। পরে ফাটলটি দক্ষিণ লেনেও ছড়িয়ে পড়ে। এর থেকে সেতুর ওপর দিয়ে চলাচলকৃত ট্রেনের গতিসীমা কমিয়ে দেওয়া হয়। 

বর্তমানে বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে প্রতিদিন ৩৮টি ট্রেন চলাচল করে। ঘণ্টায় ২০ কিলোমিটার গতিতে সেতু পারাপার হওয়ায় সময়ের অপচয়ের পাশাপাশি ঘটছে শিডিউল বিপর্যয়, বাড়ছে যাত্রী ভোগান্তি। এসব সমস্যা সমাধানে সরকার যমুনা নদীর ওপর বঙ্গবন্ধু রেলসেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেয়।

সর্বশেষ
জনপ্রিয়