ঢাকা, সোমবার   ২৪ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ১১ ১৪৩১

বিড়াল কেনা-বেচা করা যাবে?

ধর্ম ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:০৩, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩   আপডেট: ১০:০৮, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

কিছুটা আরাম প্রিয়, আয়েশী ধরনের গৃহপালিত প্রাণী বিড়াল। সহজেই পোষ মেনে যায় যে কারো কাছে। বর্তমান সময়ে এসে বিড়ালের প্রতি মানুষের আগ্রহ বেড়েছে অনেকাংশে। শখ করে অনেকেই বিড়াল পোষেন। কেউ আবার অন্যের কাছ থেকে টাকা দিয়ে কিনে বিড়াল পোষেন।

হাদিসে বিড়াল বেচা-কেনা না করতে উৎসাহিত করা হয়েছে এবং একে নাজায়েজ বলা হয়েছে। তবে, উপহার হিসাবে দেওয়া-নেওয়া করা যায়। মালিক যদি দাবি না করে, তাহলে নিজেই নিয়ে নেওয়া যায়।

বিড়াল কেনা-বেচা সম্পর্কিত এক হাদিস এসেছে, আবু যুবায়র (রহ.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি জাবির রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুরে কাছে কুকুর ও বিড়ালের মূল্য সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলাম। তিনি বললেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ ব্যাপারে সাবধান করে দিয়েছেন।’ (সহিহ মুসলিম, হাদিস, ১৫৬৯)

আল্লামা ইবনুল কাইয়ূম রহ. বিড়াল বেচা-কেনার বিষয়ে কঠোরভাবে নিষেধ করেছেন। তিনি আরও বলেছেন, এটাই সঠিক অভিমত। কারণ এ বিষয়ে সহীহ হাদিস বর্ণিত হয়েছে এবং এর বিপরীতেও কোন হাদিস নেই। সুতরাং এ কথা বলাই আবশ্যক।’ (যাদুল মায়াদ, ৫/৭৭৩)

এছাড়াও সউদি আরবের স্থায়ী ফতোয়া বোর্ডের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘বিড়াল, বানর, কুকুর ইত্যাদি লম্বা দাঁত বিশিষ্ট হিংস্র প্রাণী বিক্রি করা নিষেধ। কারণ এ ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা ও সতর্কবাণী বর্ণিত হয়েছে। তাছাড়া এটি অর্থ-সম্পদ নষ্ট করার অন্তর্ভুক্ত এবং রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ ব্যাপারে নিষেধ করেছেন। (ফতোয়া লাজনা দায়েমা, ১৩/৩৭)

সর্বশেষ
জনপ্রিয়