ঢাকা, শনিবার   ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ||  আশ্বিন ১৪ ১৪৩০

সিঙ্গাপুরে জাতির পিতার জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:৪৫, ১৮ মার্চ ২০২৩  

সিঙ্গাপুরে জাতির পিতার জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত

সিঙ্গাপুরে জাতির পিতার জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত

যথাযথ মর্যাদা আর বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায় জাতির পিতার ১০৩তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস-২০২৩ পালন করেছে সিঙ্গাপুরস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন। এই উদযাপনে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। 

গতকাল শুক্রবার (১৭ মার্চ) সকালে হাইকমিশনে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা করেন সিঙ্গাপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশের  হাইকমিশনার মো. তৌহিদুল ইসলাম, এনডিসি। এসময়ে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত পরিবেশিত হয়। জন্মদিনে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করে তার স্মৃতির প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়। 

দিবসটি উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকারের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর দেয়া বাণীগুলো পড়ে শোনানো হয়। দিবস উপলক্ষ্যে প্রদর্শিত হয় বিশেষ ডকুমেন্টারি। বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগষ্টের কালরাতে নিহত তার পরিবারের সদস্যবৃন্দ, জাতীয় চার নেতা এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের জানা-অজানা শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে করা হয় বিশেষ মোনাজাত। 

দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে আয়োজিত আলোচনায় বক্তারা নতুন প্রজন্মের মাঝে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ও মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ছড়িয়ে দেয়ার উপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেন। 

প্রধান অতিথি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, জাতির পিতা তার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে ভবিষ্যত প্রজন্মের সম্ভাব্য অবদানের কথা সর্বদাই গুরুত্বের সাথে স্মরণ করতেন। এজন্য শিশু-কিশোরদের যথার্থ বিকাশের উপরে তিনি জোর দিতেন। একটি যুগোপযোগী শিক্ষানীতি প্রণয়নের মাধ্যমে বাংলাদেশের শিশু-কিশোরদের উন্নত প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নিশ্চিতকরণের পাশাপাশি তাদের খেলাধুলা, স্বাস্থ্য, সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও আধ্যাত্মিক বিকাশের লক্ষ্যে সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে জাতির পিতা বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকারও যুগের সাথে তাল মিলিয়ে বঙ্গবন্ধুর দূরদৃষ্টিপ্রসূত সেসকল পলিসি বাস্তবায়নে সচেষ্ট আছেন। 

সমাপনী বক্তা হিসেবে আলোচনায় অংশ নিয়ে রাষ্ট্রদূত মো. তৌহিদুল ইসলাম  প্রথমেই জাতির পিতার প্রতি তার অন্তরের গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। বঙ্গবন্ধুর ‘সোনার বাংলা’ থেকে সরকারের নবপ্রণীত ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ বাস্তবায়নের অগ্রপথিক আজকের শিশু-কিশোরদের যথাযথ শিক্ষা-স্বাস্থ্য ও মানসিক বিকাশ নিশ্চিত করতে তিনি সকলকে ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস চালিয়ে যাওয়ার উদাত্ত আহ্বান জানান। 

জাতির পিতার জন্মদিন উপলক্ষ্যে এরপর একটি কেক কাটা হয়। সিঙ্গাপুর প্রবাসী শিশু-কিশোরদের জন্য দিবসটি উপলক্ষ্যে আয়োজিত রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন প্রধান অতিথি ও  হাইকমিশনার। হাইকমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দসহ সিঙ্গাপুরে প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটির বিশিষ্টজনেরা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

সর্বশেষ
জনপ্রিয়